The news is by your side.

গ্রাম বাংলায় ভিক্ষা বিত্তি একটি সামাজিক ঐতিহ্য

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

চেতনায় ডেস্কঃ গ্রাম-বাংলায় এমনকি শহরতলীতে ভিক্ষা বিত্তি একটি সামাজিক ঐতিহ্য বিবেচনা করলে কি ভুল বলা হবে, আমাদের  বংশ পরম্পরা এই ভিক্ষা বিত্তি চলে আসছে, ভিক্ষুক যখন বাড়ির দরজায় এসে হাক দেন, দেনগো মা দেন, এই ভিখারিকে কিছু দেন, আল্লাহ আপনাগো ইহকাল পরকালে শান্তি দিব, তখন বাড়ির গিন্নি বা মেয়ে নিজ কল্ল্যানে ভিখারিকে কিছু না কিছু দিয়ে বিদায় করেন, না দিলে অকল্যাণ হতে পারে তাই অধিকাংশ বাড়ি থেকে ভিখারি কিছু না কিছু পেয়ে থাকে।

গ্রাম বাংলায় ভিক্ষা বিত্তি একটি সামাজিক ঐতিহ্য

নানা ধরনের ভিক্ষুক দেখা যায়, কেহ পেটের দায়ে ভিক্ষা করে আবার কেহ কেহ ভিক্ষা বিত্তিকে পেশা হিসাবে নিয়েছে।কেহ একাকি ভিক্ষা করে আবার কেহ ৪/৫ জনের দল বেঁধে ভিক্ষা করে থাকে।সুন্দর সুন্দর গজল গেয়ে কোরাস গেয়েও ভিক্ষা করতে দেখা যায়, ৪/৫ জনের দলে সামনে থাকে একজন সুস্থ্য মানুষ, তার পিছনে একজন লেংরা তার পিছনে দুই তিন জন অন্ধ মানুষ লাইন ধরে ভিক্ষা করে, তাদের গাওয়া কোরাস গানের মধ্যে আল্লাহ, রসুল, ইহকাল পরকালের কথাই বেশি থাকে যেমন সামনের ভিক্ষুক বলবে মুখে লউ আল্লাহ রসুলের নাম, পিছনের সবাই কোরাস বলবে মুখে লউ আল্লাহ রসুলের নাম, আরও সুন্দর সুন্দর গজল বানিয়ে তারা ভিক্ষা করে থাকে ধর্ম ভিরু মুসলমানরা তাদের প্রতি দয়া দাক্ষীণা করে থাকে, তাদের আয় উপার্জনও ভাল হয়।সরকার ভিক্ষা বিত্তি বন্ধ করতে ভিক্ষুক পুনর্বাসন কেন্দ্র করেও ভিক্ষা বিত্তি বন্ধ করতে পারে নাই, কারন ভিক্ষা বিত্তি একটি সামাজিক ঐতিহ্যও বলা যেতে পারে, অনেক পরিবার তাদের দান সদকার টাকা নিয়ে অপেক্ষায় থাকেন কখন ভিক্ষুক আসবে।

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

Comments are closed.

%d bloggers like this: