The news is by your side.

জেলা পর্যায় অবৈধ জুয়া ও মদের আখড়া বন্ধে কার্যকর পদক্ষেপ চাই, অপরাধীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিন।

0

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

কামাল আহাম্মেদঃ সারাদেশ-এ এখন আলচনার বিষয় ঢাকা শরের নামী দামী ক্লাবে পুলিশ এর অভিযান, কোটি কোটি টাকা মদ উদ্দ্যার ও এই অবৈধ কাজে জড়িতদের আটক। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার সাহসী সিদ্ধান্তে আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী ঢাকা শহরের নামি দামী ক্লাবসমুহে অভিযান চালিয়ে জুয়া ও মাদকের আখড়ার খোঁজ পান এবং এই ক্লাবসমুহের জুয়ার আসর থেকে কোটি কোটি টাকার ও বিদেশী মদ ও মুদ্রা জব্দ করা হয়। এই মদ ও জুয়ার আসরের সাথে যারা জড়িত তাদের অধিকাংশ যুবলীগ ও আওয়ামী লীগের রাজনীতির সাথে জড়িত বলে জানা যায়, তবে তাদের রাজনীতির পরিচয় হল তারা বিএনপি- জামাতের রাজনিতির সাথে জড়িত ছিল এবং ২০০৮/২০১৪ সালে আওয়ামী লীগ সরকার গঠন করলে এই অবৈধ ব্যবসায় জড়িতদের অধিকাংশ আওয়ামী লীগে যোগ দেন এবং আওয়ামী লীগের গ্রুপিং এর সুযোগ নিয়ে এবং টাকার প্রলোভনে ফেলে আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের কতিপয় নেতা, এমপিদের হাত করে দলীয় ভাইটাল পদ ভাগিয়ে নেয় এবং পদের নাম ভাঙ্গিয়ে অবৈধ ব্যবসার মাধ্যমে প্রচুর অর্থ কামিয়ে নেয়, এই মদ ও জুয়ার আসরের পরিচালকরা আগে বি এন পির রাজনীতি করত এখন আওয়ামী লীগ করে। তারা ক্ষমতাসীন দলের নাম ভাঙ্গিয়ে মাল পানি কারিয়ে নেয়, এটাই তাদের চরিত্র।

বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা যখন রাষ্ট্র পরিচালনায় সফলতার জন্য বিশ্বব্যাপী প্রশংসিত হয়েছেন, বাংলাদেশকে একটি উন্নত দেশের পর্যায় নিয়ে যাচ্ছেন, বিদ্যুৎ, যোগাযোগ ব্যবস্থাসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে উন্নয়ন সাধন করেছেন, মাথা পিছু আয়সহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে দেশ এগিয়ে যাচ্ছে। তখন কিছু সুবিধাবাদিমহল আওয়ামী লীগের নাম ভাঙ্গিয়ে জুয়া মদসহ বিভিন্ন অবৈধ কাজ করে যাচ্ছে, শেখ হাসিনা বার বার সতর্ক করার পরেও তারা সংশোধন না হওয়ায়, দেশ ও জনগনের স্বার্থে তিনি আইন শৃঙ্খলা রক্ষাবাহিনীকে অবৈধ কাজ বন্ধ করার এবং অবৈধ কাজে জড়িতদের বিরুদ্ধে দলমত নির্বিষে ব্যবস্থা নিতে নির্দেশ দেন, অপরাধী যত বড়ই হোক কোন ছাড় না দেওয়ার নির্দেশ দেন, সেই দিক নির্দেশনায় আলোকে এই অভিযান, শেখ হাসিনার এই সাহসী সিদ্ধান্তে দেশ এর সকল স্তরের মানুষ যখন শেখ হাসিনার প্রশংসায় পঞ্চমুখ তখন বি এন পি জামাতিরা শেখ হাসিনার প্রতি কৃতজ্ঞতা থাকা দূরে থাক গোলা পানিতে মৎস্য শিকারে নানা ধরনের মিথ্যচার করছে, দেশের মানুষ ভাল থাক তারা চায় না, তারা চায় দেশ এর মানুষের অশান্তি, দেশের উন্নয়নেরধায়া বন্ধ করতে। তাদের বিষয়ও আমাদের সতর্ক থাকতে হবে।

আমরা মনে করি দেশের প্রতিটি জেলায় এক শ্রেণীর সুবিধাবাদী মহল অবৈধ জুয়া আর মদের আসর খুলে প্রচুর অর্থ কামিয়ে নিচ্ছে পাশাপাশি যুব সমাজকে ধ্বংস করছে, বিনষ্ট করছে সামাজিক পরিবেশ আমরা আশা করব জেলা আইন শৃঙ্খলারক্ষাকারী বাহিনী এই অবৈধ আসর বন্ধ করতে অপরাধীদের কঠোর হস্তে দমন করবেন এনং গোয়েন্দা নজরধারির মাধ্যমে অভিযান চালিয়ে জুয়ার আসর সিলগালা করে চিরতরে বন্ধ করে দিবেন।

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

Leave A Reply

Your email address will not be published.