The news is by your side.

পরিশ্রমী মানুষগুলো করোনাকে পরাজিত করছে আর আয়েশি মানুষদের করোনা কাবু করছে

0

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

চেতনায় ডেস্কঃ আমাদের সমাজে ধনী আর দরিদ্র মানুষদের মাঝে বিস্তর অর্থনৈতিক ফারাক লক্ষণীয়, যাদের আছে তাদের বাড়ি, গাড়ি মোটা অঙ্কের ব্যাঙ্ক ব্যাল্যান্স অনেক আছে, সহায় সম্পদের অভাব নাই, তিন চার পুরুষ বসে খাইলেও তাদের অর্থের ভাণ্ডার কমবে না, তারা খুবই আয়েশি হয়। এ সি রুমে ঘুমায়, এ সি গাড়িতে চড়ে আর এ সি রুমে বসে অফিস করে, পরিশ্রম কি তারা জানে না, বুজতেও চায় না, খাবার ম্যনুতে থাকে পদ্মার পাঁচ হাজার টাকা দামের ইলিশ, সিলেটের হাওরের দশ কে জি ওজনের রুই মাছ, ২০০/২৫০ গ্রামের গলদা চেংরি মাছ, দেশি মুরগি আর চিকনাই খাসীর মাংস, ভারত-পাকিস্তানি বাসমতী চাউল আর নানা ধরনের মিষ্টি, বিদেশি ফল ফলাদি, এতেও যদি মন না ভরে চলে যায় লাঞ্চ – ডিনারে পাচ তারকা হোটেলে, গোলাপি নেশা- ফুর্তির কথা আর নাইবা বললাম। সত্যিই তারা খুবই আরাম প্রিয়, আয়েশি মানুষ বটে, অল্প হাঁটলে, বিদ্যুৎ বিভ্রাটে লিফটে আটকা পড়লে তাদের সহ্য হয় না, দম জান যায় যায় অবস্থা, তবে তাদের সব সময় নামী দামি ডাক্তার আর হাসপাতালের সাথে লিঙ্ক থাকে, যে কোন রোগের লক্ষণ দেখা দেওয়া মাত্র সাথে সাথে চিকিৎসা, যথারীতি সেরেও যান। প্রয়োজনে চিকিৎসার জন্য বিদেশ গমন  নিত্য দিনের ব্যাপার । এই সময় করোনা নামের এক ভয়াবহ ভাইরাস ধনী দরিদ্র কাউকে তোয়াক্কা করছে না, যাকে ধরছে তার সাথে যুদ্ধ বাঁধিয়ে দিচ্ছে, যার প্রানশক্তি বেশি, লড়াই করার ক্ষমতা আছে, ক্ষুধা দারিদ্রের সাথে লড়াই করার অভিজ্ঞতা আছে তার কাছেই করোনা পরাজিত হচ্ছে, নাকামি চুবানি খেয়ে তার দেহ ছেড়ে পালাচ্ছে, তাই দেখা যায়, যারা  কায়িক পরিশ্রম করে থাকে, অফিসের পিয়ন, ক্ষুদ্র কর্মচারী, দিন মজুর, শ্রমিক শ্রেণী, রিস্কা- অটো চালক তাদের করোনা ভাইরাসে কাবু করতে পারে না, যদি তাদের শরিলে ডুকেও পরে তখন এই দরিদ্র শ্রেণীর মানুষের প্রানশক্তি করোনা ভাইরাসকে করুনা না করে শরিল থেকে জেটিয়ে বিদায় করে, তখন এই দরিদ্র মানুষগুলো সামান্য উপসর্গ ছাড়া বুজতেই পারেনা তারা করোনায় আক্রান্ত হয়েছিল কিনা।

তবে করোনায় আমাদের ভয় ঐ-সব প্রভাবশালী রাজনীতিবিদ, মন্ত্রি, এম,পি, শিল্পপতি, দুর্নীতিবাজ, বিত্তশালীদের নিয়ে যারা খুবই আয়েশি জীবনযাপনে অভ্যস্ত, প্রানশক্তি নেই বললেই চলে, তাদের একবার করোনায় ধরলে সহজে ছাড়ে না, করোনার করুনা দুরের কথা যমের ঘরে পাঁঠিয়েও দিতে তোয়াক্কা করে না, তারপরেও যাদের কিছুটা হলেও প্রাণশক্তি আছে তারা বাঁচার জন্য শেষ পর্যন্ত লড়ে যায়, অনেকে জয়ীর বেশে ফিরেও আসেন। কারন এই করোনার বিরুদ্ধে লড়াই করা ছাড়া কোন উপায় নাই, কারন করোনার কোন চিকিৎসাই নাই,এই ক্ষেত্রে অর্থ,সম্পদ,ডাক্তার,হাসপাতাল সবাই করোনার কাছে অসহায়।

তাই আমাদের সমাজের আয়েশি মানুষদের প্রতি নিবেদন, পরিমত খাবার খান, নিজের কাজ নিজে করুন, নিয়মিত হাঁটা চলা করুন, পারলে ব্যায়াম করুন, আপনার আশে পাশের মানুষদের নিয়ে বাঁচতে শিখুন, বলাতো যায় না ভবিষ্যতে আমাদের জন্য আর কোন করোনা অপেক্ষা করছে।  সম্পাদক, চেতনায় একাত্তর   

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

Leave A Reply

Your email address will not be published.

%d bloggers like this: