The news is by your side.

বিসর্জনের মধ্যদিয়ে শেষ হল শারদীয় দুর্গোৎসব।উৎসবমুখর মুন্সীগঞ্জ(বিক্রমপুর)

0

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

শরমিতা লায়লা প্রমিঃ ইতিহাস ঐতিহ্যের তীর্থস্থান বিক্রমপুর তথা মুন্সীগঞ্জ জেলা, এই জেলার সর্বত্রই বনেদি হিন্দুদের বাস ছিল, বিভিন্ন গোত্রের মধ্যে উৎসব পালনে প্রতিযোগিতা শুরু হতো, পালদের মণ্ডপ বড় সুন্দর না সাহাদের মণ্ডপ সুন্দর, কারা প্রসাদ কি দিল। কাদের পুজায় লোক সমাগম বেশী হল, এই প্রতিযোগিতা উৎসবকে আরও আকর্ষণীয় করে তুলতো, উৎসবকে ঘিরে এক মাসব্যাপি মেলা বসতো, কীর্তন হতো, যাত্রাপালা, পুতুন নাচ কত কি আয়োজন থাকতো। এখনও মুন্সীগঞ্জ(বিক্রমপুর)থেকে এই সব একেবারে বিলীন হয়ে যায়নি। অনেক হিন্দু দেশ বিভক্তির সময়(১৯৪৭) ওপার বাংলায় চলে গেলেও যারা এখনও এই পার বাংলায় আছে যারা সাধ্যমত চেষ্টা করে যাচ্ছে পুরানো ঐতিহ্যকে ধরে রাখতে।

এইবারের দুর্গাপুজা বেশ উৎসব মুখর পরিবেশে শান্তিপুন্নভাবে জেলা সর্বত্র উদযাপন করা হল, এই পুজার প্রতিটি দিন মুন্সীগঞ্জ-০২ আসনের সংসদ সদস্য আধ্যাপিকা সাগুফতা ইয়াসমিন এমিলি প্রতিদিন কোন না কোন পুজা মণ্ডপে গিয়েছেন, সকলের সাথে মিলে মিশে আনন্দঘন পরিবেশের মধ্যদিয়ে হিন্দুদের পাশে থেকেছেন, মায়ের পুজা বলে কথা, পুজায় মেয়েদের বেশি সমাগম ঘটে, মেয়েরা এম.পিকে কাছে পেয়ে আরও বেশী উৎসাহিত হয়ে পড়ে, এমনিতেই হাঁসি খুশি মনের মানুষ সাগুফতা ইয়াসমিন এমিলি, তাকে শ্রদ্ধা করে, আদর করে, ভালোবেসে ভাবি বলে, কেহ মা বলে, কেন আপা বলে সম্বোধন করে থাকে।

মহা সপ্তমীর দিন কলা বউয়ের স্নান, মেয়েরা লাল পেড়ে শাড়ি পরে আবার কেহ বেনারসি সাড়ি পরে, কলা বৌ স্নান অনুষ্ঠানে জমায়েত হয়, আমাদের প্রিয় এম.পি সাগুফতা ইয়াসমিন একটা লাল পেরে জামদানি শাড়ি পরে উপস্থিত হন, মেয়েরা তাকে কাছে পেয়ে খুশিতে ভরে উঠে, বিক্রমপুরের বধুকে ঘিরে থাকে মুন্সীগঞ্জের মেয়েরা। মহাসপ্তমী থেকে দশমী এই চারদিন আনন্দঘন পরিবেশে বিজয়া দশমীর দিন মা-দুর্গাকে বিসর্জনের মধ্যদিয়ে শেষ হল হিন্দু ধর্মানুরাগীদের দুর্গা পুজা উৎসব।

Get real time updates directly on you device, subscribe now.

Leave A Reply

Your email address will not be published.